ব্রাজিলকে হারিয়ে বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করতে চায় আর্জেন্টিনা

খেলা

অপেক্ষার আর মাত্র কয়েকটা ঘণ্টা বাকি। তারপরই বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে মুখোমুখি চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। স্বাভাবিকভাবেই ফুটবলপ্রেমীদের প্রত্যাশার পারদ ক্রমশই চড়ছে।

বন্ধুত্ব ভুলে মাতৃভূমিকে জেতানোর চেষ্টায় মাঠে নামবেন নেইমার ও লিওনেল মেসি। এই মুহূর্তে ক্লাব ফুটবলে দু’জন সতীর্থ। তবে দেশের জার্সিতে একে অপরকে এক ইঞ্চিও মাটি ছাড়বেন না তারা।

তবে কোপা আমেরিকা ফাইনালের হারের বদলাটা যে নেয়া বাকি আছে তাদের। তাই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের হারাতে প্রস্তুত সেলেকাওরা। পক্ষান্তরে, বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন করার জন্য একটি জয় প্রয়োজন আর্জেন্টিনার।

কোপার ফাইনালের পর অবশ্য এই দু’দল একবার মুখোমুখি হয়েছিল। কিন্তু করোনা বিতর্কে ব্রাজিলের ঘরের মাঠে আয়োজিত ম্যাচটি ভণ্ডুল হয়ে যায়। ইংল্যান্ড থেকে আসা আর্জেন্টিনার চার ফুটবলারকে পাকড়াও করতে ম্যাচ চলাকালীন মাঠে ‌ঢুকে পড়েন ব্রাজিলের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

নিঃসন্দেহে ঘরের মাঠে সেই লাঞ্ছনার জবাব দিতে চাইবে লায়োনেল স্কালোনির দল। তাছাড়া সম্প্রতি দুর্দান্ত ছন্দে রয়েছে আর্জেন্টিনা। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে শেষ ২৬টি ম্যাচে অপরাজেয় তারা। আক্রমণভাগে রীতিমতো আলো ছড়াচ্ছেন মেসি, লাওতারো মার্তিনেজ, ডি মারিয়ারা।

মাঝমাঠে ভরসা ডি পল-লো সেলসো জুটি। তবে কোচ স্কালোনিকে সবচেয়ে নিশ্চিন্ত করছে দলের রক্ষণভাগ। গত পাঁচ ম্যাচে কোনো গোল হজম করেননি ক্রিশ্চিয়ান রোমেরোরা। দুর্গপ্রহরী এমিলিয়ানো মার্তিনেজও স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন।

তবে মেসির চোট কিছুটা চিন্তায় রাখছে আর্জেন্টিনার কোচকে। হাঁটুর চোটের জন্য ক্লাবের হয়ে বেশ কয়েকটি ম্যাচে খেলতে পারেননি তিনি। ক্লাবের বারণ না শুনে দেশের হয়ে খেলতে এসেছেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা। ব্রাজিল ম্যাচের কথা মাথায় রেখেই গত ম্যাচে তাকে উরুগুয়ের বিরুদ্ধে প্রথম একাদশে রাখা হয়নি।

বাছাই পর্বে এখন পর্যন্ত হারের মুখ দেখেনি ব্রাজিল। তবে দৃষ্টিনন্দন ফুটবল উপহার দিতে ব্যর্থ সেলেকাওরা। প্রত্যাশিত ছন্দে নেই নেইমার। তবে আক্রমণভাবে তিতে-ব্রিগেডকে ভরসা জোগাচ্ছেন ফর্মে থাকা ভিনিসিয়াস জুনিয়র।

এছাড়া নিয়মিত গোলের মধ্যে রয়েছেন লুকাস পাকুয়েতাও। উল্লেখ্য, কার্ড সমস্যায় কাসেমিরো এই ম্যাচে খেলতে পারবেন না। আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে নামার আগে কোচ তিতের মন্তব্য, ‘বিশ্বকাপের টিকিট পেয়ে গিয়েছি। তবে আর্জেন্তিনা ম্যাচের গুরুত্ব বুঝি। ধারাবাহিকতা ধরে রাখাই প্রধান লক্ষ্য আমাদের।’

খেলা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোর সাড়ে ৫টায়। আর ভারতের সময় ভোর ৫টায়।